দুবাইয়ে ৮০ লাখ ডলার পাচারের অভিযোগে ফালুসহ সাতজনকে দুদকে তলব

  • ৮-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও জাল জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধ উপায়ে আট মিলিয়ন ডলার (প্রায় ৬৫ কোটি টাকা) দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার ব্যবসায়ীর পর এবারখালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পরিষদের সাবেক সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ সাত ব্যবসায়ীকে তলব করেছে দুর্নীতি কমন কমিশন (দুদক)।

তাদেরকে ১৩ ও ১৪ অগাস্ট দুদক প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে নোটিস পাঠানো হয়েছে বলে কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য‌্য জানিয়েছেন।

তলবকৃতদের মধ্যে রোজা প্রোপার্টিজ লিমিটেডের পরিচালক মোসাদ্দেক আলী ফালু, বিএনপি নেতা ও আরএকে সিরামিকসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এ কে ইকরামুজ্জামান ও তার ছেলে আরএকে পেইন্টস লিমিটেডের পরিচালক মো. কামারুজ্জামান এবং জুলপাহার বাংলাদেশ লিমিটেডের পরিচালক সৈয়দ এ কে আনোয়ারুজ্জামানকে ১৪ অগাস্ট তলব করা হয়েছে।

এছাড়া আরএকে পাওয়ার লিমিটেডের পরিচালক মাকসুদুল করিম, আরএকে সিরামিকসের স্বতন্ত্র পরিচালক ফাহিমুল হক ও স্টার সিরামিকসের পরিচালক প্রতিমা সরকারকে ১৩ অগাস্ট জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হয় বলে জানান প্রণব কুমার।

একই অভিযোগে আরও চার ব্যবসায়ীকে ১২ অগাস্ট তলব করে রোববার নোটিস পাঠিয়েছে অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন।

তারা হলেন- আরএকে কনজুমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের পরিচালক মোহাম্মদ আমির হোসাইন, পরিচালক এম এ মালেক, রোজা প্রোপার্টিজ লিমেটেডের পরিচালক মো. আসফাক উদ্দিন আহমেদ এবং আরএকে পেইন্টস লিমেটেডের পরিচালক সাইলিন জামান আক্তার।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার তাদেরকে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞাও দিয়েছে দুদক।

দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের সই করা ওই চিঠিতে বলা হয়, মোসাদ্দেক আলী ফালু ও অন্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও জাল জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধ উপায়ে আট মিলিয়ন ডলার (প্রায় ৬৫ কোটি টাকা) দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগ রয়েছে।

এতে বলা হয়, তারা বিদেশে অফশোর কোম্পানি খুলে মানিল্ডারিং ও হুন্ডির মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচার করেছেন।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে দুই সদস‌্যের দল অভিযোগটি অনুসন্ধান করছেন। এ দলের অপর সদস‌্য হলেন সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।

Ads
Ads