ট্রাক থামিয়ে ইট নিলেন পুলিশ! অতঃপর…

  • ৩১-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

ঢাকার ব্যস্ত সড়কে এক পুলিশ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছিলেন। হঠাৎ তাকে দেখা গেল হাত নাড়তে। প্রথমে বোঝা যায়নি, তিনি কার দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন। পরে বোঝা গেল, দূরে একটি ট্রাকের ড্রাইভারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

ট্রাকটি রাস্তার মাঝ বরাবর যাচ্ছিল। মোটামুটি কাছে আসতেই ঐ পুলিশ কর্মকর্তা দুই হাতের দশ আঙুল তুলে দেখালেন। তিনি আসলে কী বোঝাতে চেয়েছিলেন বোঝা যায়নি। হাত উঠিয়ে দুই-তিনবার দেখানোর পর রাস্তার মাঝ বরাবর ধীর গতিতে চলতে থাকা ট্রাকটি থামল।

এমন ঘটনার ভিডিও ধারন করেছেন পাশেই দাঁড়িয়ে থাকা একজন। আর সেই ভিডিও ছড়িয়ে দেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। ইতোমধ্যে সেটি ভাইরাল হয়ে গেছে।

ভিডিওতে দেখা গেল, প্রথমে ঐ পুলিশ কর্মকর্তার আসল উদ্দেশ্য বোঝা যাচ্ছিল না। তিনি আসলে কী করতে চাচ্ছেন। তিনি ট্রাকটিতে থাকা লোকদেরকে জানালেন দশটা ইট লাগবে। পায়ের কাছে খাল খন্দর দেখিয়ে বোঝালেন ইটগুলো সেখানে দিতে হবে। পুলিশের এমন আহ্বানে ট্রাক থেকে ইট সেখানে ফেলা হলো। নিজ হাতে পানি জমে থাকা খন্দরে ইট বিছিয়ে দিলেন তিনি। তাকে সহযোগিতা করতে এগিলে এলেন বেলুন বিক্রেতা এক বালক। কাজ শেষ করে চলে গেলেন পুলিশ কর্মকর্তা।

ভিডিওটি ফেসবুকে প্রকাশ করে ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন ভিডিওধারণকারী। তিনি লিখেছেন, সেদিন রাত নয়টায় মিরপুর সনি সিনেমার সামনে দাঁড়িয়ে এক বন্ধুর সাথে কথা বলছি। হঠাৎ দেখি সার্জেন্ট (মানিক) এক ইট ভর্তি ট্রাককে দুই হাতের দশ আঙ্গুল দেখিয়ে সিগনাল দিচ্ছে। কি মনে হচ্ছে? একশ টাকা চাঁদা চাচ্ছে তাই তো? খেলা এখানেই। এর বিপরীতে ট্রাক ড্রাইভার এক হাতের পাঁচ আঙ্গুল দেখালো। সার্জেন্ট মনে হয় খুশি হতে পারলো না। তাই ট্রাককে সাইড করতে বললো। বেচারা কি আর করে? বাধ্য হয়ে সাইড করলো। এরপর সার্জেন্ট তাকে অবাক করে দিয়ে বলল, দশটা ইট এখানে ফেলো। কারণ সেখানে মোটামুটি বড়সড় একটা গর্ত ছিল। এবং সেটি বৃষ্টির পানিতে ঢেকে ছিল। যার জন্য গাড়ি যাতায়াত করতে সমস্যা হচ্ছিল। উনি নিজে ইটগুলো উঠিয়ে গর্তটি ভরে দিলেন। এভাবে বেশ কয়েকটা ট্রাক থেকে চাঁদা তুলে জনগণের সেবা করতে দেখে ছবি এবং ভিডিও না করে থাকতে পারলাম না।

এখনো আমাদের কিছু পুলিশদের মানবতা বেঁচে আছে, মরে যায়নি। যদি আমাদের প্রশাসনের প্রত্যেকটা লোক এনাদের মত দায়িত্বশীল হতো তাহলে আমাদের দেশের চেহারাই পাল্টে যেত। বিশ্বের অনেক দেশকেই পিছনে ফেলে এগিয়ে যেত। শুধু প্রশাসন নয় প্রত্যেকটা নাগরিকের দায়িত্বশীল হওয়া দরকার। যাতে দেশ ও জাতির উন্নতি হয়।

Ads
Ads