যে কারণে ৮০ আসনে তরুণদের নৌকার মনোনয়ন দিতে চান শেখ হাসিনা

  • ২৭-Jul-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

উৎপল দাস

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকার বেশ বড় একটা অংশে থাকবে তরুণদের নাম। কমপক্ষে ৮০ টি আসনে তরুণদের মনোনয়ন দেয়ার ব্যাপারে ইতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। আগামী সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতেই আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের সঙ্গে কথাও বলবেন শেখ হাসিনা। কেন তরুণদের বেছে নেয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ  আওয়ামী লীগের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র ভোরের পাতাকে জানিয়েছে, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে তরুণরা প্রাধান্য পাবেন মূলত একটি কারণে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর আগেও বলেছেন, তিনি আর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে থাকতে চান না। এই নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী হিসাবেই দায়িত্ব পালন করতে চান। দলীয় কাউন্সিলে নতুন সভাপতি পেতে পারে আওয়ামী লীগ। সেক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের সম্ভাবনাই সবচে বেশি। সেদিক বিবেচনায় সজীব ওয়াজেদ জয়ের ভবিষ্যত রাজনীতির কথা ভেবেই তিনি এবার তরুণদের একটি টিম করে দিয়ে যেতে চান। 

এদিকে, কারা মনোনয়ন পেতে পারেন এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন,
নতুন মুখগুলোর বেশির ভাগই সাবেক ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও বর্তমান আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা। এছাড়া আওয়ামী লীগ-সমর্থিত বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারাও রয়েছেন এই দলে। 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে এলাকায় মাঠপর্যায়ে তোড়জোড় শুরু করে দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। নিজ নিজ সংসদীয় আসনের মানুষের সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি এবং জনপ্রিয়তা অর্জনে তারা এলাকায় যাচ্ছেন, গণসংযোগ করছেন। বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষে নবীন-প্রবীণ মনোনয়ন প্রত্যাশী সব নেতার নজর এখন এলাকার দিকে। ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী এই নেতাদের অনেকে এলাকায় ইতোমধ্যে বেশ আলোচিত হয়ে উঠেছেন। মনোনয়নের দৌঁড়ে পুরনো প্রার্থীদের সামনে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে দাঁড়িয়েছেন তারা। তাদের মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় কমিটির গুরুত্বপূর্ণ নেতা যেমন রয়েছেন তেমনি আছেন ছাত্রলীগ কিংবা অঙ্গসংগঠনের নেতাও। ক্লিন ইমেজ নিয়ে তরুণ নেতাদের মধ্যে পেশাজীবী বিশেষ করে ব্যবসায়িক সম্প্রদায় থেকেও বেশ কয়েকজন নৌকার মনোনয়ন পেতে পারেন বলে জানা গেছে।

Ads
Ads