রমজানে ক্রেতা-বিক্রেতা সবাইকে সংযমী হয়ে চলতে হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

  • ৬-মে-২০১৯ ০৫:১৯ অপরাহ্ন
Ads

 

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, আমাদের মজুদ পরিস্থিতি ভালো রয়েছে। বাজারে পণ্যের দ্রব্যমূল্য নিয়েও আমরা সার্বিকভাবে সন্তুষ্ট। এবার রমজানে মানুষের ওপর চাপ পড়বে না। রোজা সামনে রেখে আমাদের মনিটরিং টিম যথেষ্ট সচেতন আছে।

সোমবার (০৬ মে) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বেসরকারি টেলিভিশন ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের (অ্যাটকো) সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

উৎসব হলে বেশি ক্রয় করে চাহিদা বাড়িয়ে দেওয়া বাংলাদেশের ক্রেতাদের একটি অভ্যাস মন্তব্য করে টিপু মুনশি বলেন, তারা সব একেবারে একসঙ্গে কিনতে চান। ফলে ব্যবসায়ীরা সুযোগ পেয়ে যান। তাই রমজানে ক্রেতা-বিক্রেতা সবাইকে সংযমী হয়ে চলতে হবে। যথেষ্ট মজুদ আছে, কোনো রকমের ঘাটতি হবে না। বাজারে দ্রব্যমূল্য সহনীয় অবস্থায় আছে। তবে কিছু পণ্যের দাম যেমন দুই এক টাকা বেড়েছে তেমনি কিছু পণ্যের দাম কমেছে। ২০১৭ ও ২০১৮ সালে রমজানের সময় পণ্যের যে দাম ছিল তার চেয়ে এখন দাম অনেকটাই কমেছে। কোনো কোনো জায়গায় দাম বেড়েছে, কিন্তু সব জায়গায় না।’

তিনি বলেন, বর্তমানে বাজারে শাক-সবজির দামসহ পিঁয়াজ ও চিনির দাম কিছুটা বেড়েছে। তবে দেশের বাজারে একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান তেলের দাম দুই টাকা কমিয়েছে। রোজাকে সামনে রেখে ছোলার দাম বাড়ার সুযোগ নেই।

রমজানে প্রতিদিন মন্ত্রণালয়ের চারটি টিম রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করবে বলেও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘তবে এতো বড় বাজার চারটি টিম দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। তারপরও আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। আগামীতে আমাদের জনবল বাড়ানোর জন্য আলোচনা চলছে। রাতারাতি জনবল বাড়ানো যায় না। অসাধু ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ানোর চেষ্টা করে, সেটি আমরা দেখছি। চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণের বিষয়টিও দেখা হচ্ছে। পুলিশ ও প্রশাসনকে বলেছি রাস্তার চাঁদাবাজি বন্ধ করতে। নইলে তা পণ্যের ওপর প্রভাব পড়ে।’ এজন্য জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ঠ সবাইকে এ বিষয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে বলেও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

Ads
Ads