নির্বাচিত প্রার্থীদের সতর্ক করলো বিএনপি

  • ২৯-Apr-২০১৯ ০১:২৩ পূর্বাহ্ণ
Ads

 

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচিত প্রার্থীরা যেন শপথ না নেয়, সে ব্যাপারে সতর্ক করলো বিএনপি। রোববার রাতে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

দলীয় সূত্র মতে, জাহিদের পথ ধরে অন্যরা যাতে শপথ না নেয়, সেজন্য বিএনপির একাধিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা রোববার দিনভর ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। রোববার সন্ধ্যার পর নির্বাচিতদের মধ্যে তিনজনকে নিয়ে গুলশান কার্যালয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতারা। বৈঠকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের আমিনুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের হারুন উর রশিদ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উকিল আবদুস সাত্তার উপস্থিত ছিলেন। স্থায়ী কমিটির নেতাদের মধ্যে ছিলেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিষ্টার জমির উদ্দিন সরকার, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। জানা গেছে, নির্বাচিতদের বিএনপির নেতারা বুঝানোর চেষ্টা করেছেন, কেন তাদের শপথ নেয়া উচিত হবে না।

বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত এমপি জাহিদুর রহমান শপথ নেয়ার পর বলেছিলেন, ‘অন্যরাও শপথ নিতে পারেন। তারা শপথ নিলে একসাথে সংসদ অধিবেশনে যোগ দেবেন।’ বাকীদের সাথে কোন যোগাযোগ হয়েছে কি-না রোববার তাকে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, না, শপথ নেয়ার পর আমি মোবাইল বন্ধ রেখেছি, কারো সাথে যোগাযোগ হয়নি। তিনি বলেন, বহিষ্কার করা হলেও আমি বিএনপিতেই আছি। আজীবন এই দলেই থাকবো।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অভাবনীয় ফল বিপর্যয়ের কারনে শুরু থেকে বিএনপি ফল প্রত্যাখ্যান করে পূননির্বাচনের দাবী জানিয়ে আসছে। পাশাপাশি নির্বাচিতদের শপথ না নেয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় তারা। এরপরেও নির্বাচিত ৬ সদস্যের মধ্যে মহাসচিব ছাড়া বাকী ৫ জন শপথ নেয়ার আগ্রহের কথা নানা ফোরামে জানানোয় বিপাকে পরে বিএনপি।

গত বৃহস্পতিবার দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে জাহিদুর রহমান শপথ নেয়ার একদিন পরেই তাকে বহিষ্কার করে অবস্থান স্পষ্ট করে বিএনপি। অন্যদের বেলায়ও একই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানা গেছে। তবে বিএনপির হাইকমান্ড নির্বাচিতদের শপথ নেয়া থেকে বিরত রাখতে সব ধরনের চেষ্টা করছে। গতরাতে এক নেতা বলেন, তাদের আশা আর কেউ শপথ নেবেন না।

Ads
Ads