ব্রুনেইয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও উষ্ণ অভ্যর্থনা

  • ২১-Apr-২০১৯ ০৫:৩০ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

তিন দিনের সরকারি সফরে ব্রুনেই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ব্রুনেই পৌঁছানোর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিমানবন্দরে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও গার্ড অব অনার প্রদানের মাধ্যমে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হয়েছে।

রবিবার (২১ এপ্রিল) স্থানীয় সময় বেলা আড়াইটার দিকে ব্রুনেই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। ব্রুনেই আন্তজার্তিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর স্বাগত জানান দেশটির ক্রাউন প্রিন্স (যুবরাজ) আল-মুহতাদি বিল্লাহ বলকিয়া।

এর আগে আজ সকাল সাড়ে আটটার দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-১৪০৫ ফ্লাইটে ব্রুনেই দারুস সালামের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ব্রুনেই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রাষ্ট্রীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে মোটর শোভাযাত্রা সহযোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নেয়া হয় সফরকালীন আবাসস্থল এম্পায়ার হোটেল অ্যান্ড কান্ট্রি ক্লাবে।

ব্রুনেইয়ের সুলতান হাজি হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে শেখ হাসিনার এই সফরে দুই দেশের মধ্যে কয়েকটি সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার পাশাপাশি বিনিয়োগের পথ খুলবে বলে সরকারের তরফ থেকে আশা করা হচ্ছে।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, পররাষ্ট্র মন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু এবং সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এই সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গী হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, সাবেক মুখ্য সচিব আব্দুল করিম, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খানও রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সচিব সাজ্জাদুল হাসান, প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গীদের মধ্যে।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম, এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির, বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের পরবর্তী সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, বারভিডা সভাপতি হাবিব উল্লাহ ডন, ভোরের পাতা সম্পাদক, এফবিসিসিআই পরিচালক এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প -বাণিজ্য ও ধর্ম বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ড. কাজী এরতেজা হাসানসহ ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ব্রুনেই এসেছেন।

সফরের প্রথম দিন হোটেলের বলরুমে প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। পরে বাংলাদেশ হাই কমিশনারের দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেবেন।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়ের সুলতান বলকিয়ার সরকারি বাসভবন ইস্তানা নুরুল ইমানের চেরাদি লায়লা কেনচানায় রাজ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হবেন।

সেখানে সুলতানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর। বৈঠক শেষে তাদের উপস্থিতিতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ব্রুনেই সফরে দুই দেশের মধ্যে কৃষি, শিল্প ও সংস্কৃতি, যুব ও ক্রীড়া, মৎস্য সম্পদ, প্রাণিসম্পদ ও জ্বালানি খাতে সহযোগিতা বিষয়ে ছয়টি সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে।

এছাড়া দুই দেশের কূটনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের ভিসা ছাড়া ভ্রমণের সুযোগ দিতে কূটনৈতিক নোট বিনিময়ের সম্ভাবনা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “ব্রুনেইয়ের বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি পাওয়ার বিষয়েও আশাবাদী আমরা।”

ব্রুনেই ও বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য মাত্র ১০ লাখ ডলারের মত। তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের সক্ষমতা আছে দেশটির।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (দ্বিপক্ষীয়) মো. কামরুল আহসান বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারীদের একটি ব্রুনেই। তারা আমাদের কৃষি ও খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পে বিনিয়োগ করতে পারে। তাদের চাহিদা মত খাবার প্রস্তুত করে এখান থেকে রপ্তানি করতে পারে।

এছাড়া রোহিঙ্গা সংকট এবং মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টির বিষয়েও আলোচনা হবে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে।

সোমবার বিকালে এম্পায়ার হোটেলে ব্রুনেই ও বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনুষ্ঠেয় বৈঠকে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

পরে তিনি জামে আসর মসজিদ পরিদর্শন করবেন এবং সেখানে আসরের নামাজ আদায় করবেন। সুলতানের সরকারি বাসভবনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সন্মানে দেওয়া ভোজসভাতেও তিনি যোগ দেবেন।

মঙ্গলবার সকালে ব্রুনেইয়ের রাজধানীর কূটনৈতিক এলাকা জালান কেবাংসানে বাংলাদেশ হাই কমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন শেখ হাসিনা। পরে তিনি রয়েল রেজালিয়া জাদুঘর পরিদর্শন করবেন।

সেদিন স্থানীয় সময় বিকাল ৫টায় ঢাকার উদ্দেশে ব্রুনাই ছাড়বেন শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যায় ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার।

Ads
Ads