রাঙ্গাবালীতে ছুরিকাঘাতে বিএনপি নেতা জখম, হামলাকারীকে গণধোলাই

  • ১-জানুয়ারী-২০১৯

:: রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ::

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় মোতালেব হাওলাদার (৪০) নামে বিএনপির এক নেতাকে ছুরিকাঘাতে জখম করা হয়েছে। এ সময় হামলাকারীকে গণধোলাই দিয়েছেন স্থানীয় জনতা।

বুধবার (০২ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের তিল্লা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ছুরিকাঘাতে আহত মোতালেব ওই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি।

এদিকে এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে শাকিল মৃধা নামে এক হামলাকারীকে ধরে গণধোলাই দিয়েছেন জনতা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ৯টার দিকে ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের তিল্লা নিজ বাড়ি থেকে মোতালেব হাওলাদার দোকানের উদ্দেশ্যে রওনা হন। পথিমধ্যে পার্শ্ববর্তী নলবুনিয়া গ্রামের শাকিল মৃধা তার (মোতালেব) পথরোধ করে দাঁড়ান।

একপর্যায় বিএনপি-রাজাকার এলাকায় থাকতে দেব না বলে এলোপাতাড়িভাবে মোতালেবকে ছুরিকাঘাত করে শাকিল। পরে স্থানীয় লোকজন এসে মোতালেবকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে পাঠান।

এদিকে মোতালেবকে ছুরিকাঘাত করার ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শাকিলকে গণধোলাই দিয়েছেন স্থানীয় জনতা। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

তিল্লা গ্রামের শিপন হাওলাদার বলেন, শাকিল এলাকায় চিহ্নিত চোর ও মাদকসেবী ও ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। শাকিলের বিরুদ্ধে করা একটি মাদক মামলার সাক্ষী ছিলেন মোতালেব। এতে মোতালেবের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন তিনি। তাই সুযোগ পেয়ে মোতালেবকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আমরা শাকিলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এ ব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার ওসি মিলন কৃষ্ণ মিত্র বলেন, শাকিল প্রথমে মোতালেবকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে আহত করেছে। পরে মোতালেবের লোকজন শাকিলকে কুপিয়েছে। দুজনকেই আহতাবস্থায় হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

/কে