পাকিস্তান ঝুলন্ত পার্লামেন্টের পথে

  • ২৬-Jul-২০১৮

ভোরের পাতা ডেস্ক
পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে দেশটির একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আংশিক ফল ঘোষণা করা হয়েছে। যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে নির্বাচনের ফল প্রকাশে বিলম্ব হওয়ার কথা আগেই জানিয়েছিল তারা।

ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ২৫১টি আসনের ফল ঘোষনা করেছে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পেয়েছে ১১০টি আসন। পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএন-এন)এর দখলে রয়েছে ৬৩টি আসন । পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) পেয়েছে মাত্র ৪২টি আসন। ফলাফলে একক বৃহত্তম দল হিসাবে উঠে এসেছে ইমরান খানের পিটিআই। তবে পার্লামেন্টের ২৭২টি আসনের মধ্যে সরকার গঠনের জন্য দরকার ১৩৭ আসন। এ কারণে সরকার গঠন করতে হলে জোট গড়তে হবে ইমরানকে। এখন পর্যন্ত ঘোষিত ফলাফল থেকে এ আভাসই পাওয়া গেছে।

পাকিস্তানের তিনটি বড় দলের পর সবচেয়ে বেশি ১২ টি আসন পেয়েছে নির্দলীয় প্রার্থীরা। স্থানীয় দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১০টি আসন জিতেছে মুত্তাহিদা মজলিস-ই-আমল। আর পাকিস্তান মুসলিম লীগ-কায়েদ

(পিএমএলএন-কিউ)পেয়েছে মাত্র পাঁচটি আসন।

২৫ জুলাই পাকিস্তানের ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ২৭২টি আসনের ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হলেও সহিংসতার কারণে দু’টি আসনের কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়।

২৭০টি আসনের মধ্যে ২৫১টি আসনের ফল ঘোষণা করেছে পাক নির্বাচন কমিশন। শীঘ্রই বাকি আসনগুলোর ফলাফলও প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে তারা। তখনই জানা যাবে ইমরান খান কোন দলগুলোর সঙ্গে জোট বাধার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

ইতিমধ্যেই জয় দাবি করে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছেন ইমরান খান। পাকিস্তানের নেতৃত্ব নেওয়ার অপেক্ষায় থাকা ইমরান দেশের জনগনের আশা আকাংক্ষা কতটা পূরণ করতে পারেন সেটাই এখন দেখার বিষয়।