২৩ এপ্রিল কেন ধ্বংস হয়নি পৃথিবী?

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

এমন শিরোনাম দেখে যে কেউ ভাবতে পারেন, এটি আবার কেমন কথা হলো! পৃথিবী কি ধ্বংস হওয়ার কথা ছিল নাকি! হ্যাঁ, আসলেই পৃথিবী ধ্বংস হওয়ার কথা ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন একদল ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিক। তারা বলেছিলেন ২৩ এপ্রিলই নাকি ধ্বংস হবে আমাদের প্রিয় পৃথিবী! আকাশে দেখা মিলবে সৌরজগতের দ্বাদশ গ্রহ নিবিড়ুর। সে হিসেবে আজই ধ্বংস হওয়ার কথা পৃথিবী, আকাশে দেখা মিলবে নিবিড়ুর। এমন কিছু যে ঘটেনি তা বলাই বাহুল্য।

মাঝে মাঝেই ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকদের এমন অসম্ভব দাবির কথা শোনা যায়। গত বছরের অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে দু’বার পৃথিবী ধ্বংসই করে ফেলেছিলেন ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’-এ বিশ্বাসীরা। এখন এমন কথা হাস্যরসেরই উদ্রেক করে মাত্র।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্ল্যানেট এক্স খ্যাত নিবিড়ু গ্রহের আবির্ভাবের সাথে সাথে পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাবে, ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকদের এমন বক্তব্যের কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি মেলেনি। নিবিড়ু গ্রহরই কোনো অস্তিত্বই পাওয়া যায়নি।

কিন্তু নিবিড়ুর আবির্ভাব নিয়ে বার বার সরব হয়েছে ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’-এর প্রবক্তারা। তাদের ধারণা, নাসা বা অন্যান্য মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইচ্ছাকৃতভাবেই নিবিড়ুর অস্তিত্বকে আড়াল করে রাখছে।

মায়া সভ্যতা বিশারদ জেমস ম্যাককেনির মতে, প্রায় ১০ হাজার বছর আগে পৃথিবীর বুক থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছিল সভ্যতা। কারণ নিবিড়ু খুব কাছে চলে এসেছিল পৃথিবীর।

২৩ এপ্রিল পৃথিবীর ধ্বংসের সঙ্গে ষড়যন্ত্র তত্ত্বের বিশ্বাসীরা এবার মিলিয়ে দিয়েছেন যিশু খ্রিস্টকেও। বলা হচ্ছে, ওইদিন সূর্ষ, চাঁদ ও শুক্র এক সরলরেখায় আসবে। বাইবেল বর্ণিত ‘র‌্যাপচার’ অর্থাৎ যিশুর প্রত্যাবর্তনকেও জড়িয়ে ফেলা হয়েছে তাদের বক্তব্যে!

তবে এসব ভবিষ্যদ্বাণীই যে গালগপ্পোর বেশি কিছু নয় তা আরও একবার প্রমাণিত হলো।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here