মা দিবসে শাওনকে কাঁদাল হুমায়ূন পুত্রদ্বয়

:: বিনোদন ডেস্ক ::

চলে গেল মা দিবস। প্রতি মে মাসের দ্বিতীয় রবিবার পালিত হয় দিবসটি। তারই ধারাবাহিকতায় ১৩ মে রবিবার পালিত হয়েছে মা দিবস। এ দিবসে তারকাদের সন্তানেরা নানাভাবে তাদের মাকে সারপ্রাইজ দিয়েছে। টিভি চ্যানেলেও দেখা গেছে সন্তানসহ তারকাদের আসতে।

এ দিনে মাকে সারপ্রাইজ দিয়েছে হুমায়ূন আহমেদের পুত্রদ্বয় তাদের ভালোবাসার জোরে অশ্রু ঝরিয়ে দিলো শাওনের চোখে। দুটি কার্ডের মাধ্যমে ওরা মেহের আফরোজ শাওনকে জানিয়েছে ওদের ভালোবাসার কথা।

নিষাদ লিখেছে একটি ইংরেজি কবিতা এবং নিনিত লিখেছে কিছু বাক্য।

শাওন কার্ড দুটি হাতে পাওয়ার পর সন্তানদের ভালোবাসার এ কথাগুলো ব্যক্ত করেছেন নিজ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে। তিনি লিখেছেন, ‘দিবস টিবস খুব একটা ভালো লাগে না আমার। বাচ্চাদের জন্মদিন, হুমায়ূন এর জন্মজয়ন্তী, মা বাবা, ভাই বোন, বন্ধু শুভাকাঙ্ক্ষীদের বিশেষ দিন, দুই ঈদ, পহেলা ফাল্গুন, পহেলা বৈশাখ আর বাংলাদেশের ভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, এগুলোই পালন করা হয় আমার।

ভালোবাসা দিবস কেমন ন্যাকা ন্যাকা লাগে, নারী দিবস খুব পঙ্গু পঙ্গু লাগে, বাবা দিবসে খুব একা একা লাগে।

কাজের ব্যস্ততায় ছয় দিন কলকাতা আর দুই দিন জামালপুর হয়ে আজ ভোর পাঁচটায় বাড়ি ফিরেছি। সাড়ে ছয়টায় পুত্রদ্বয়কে স্কুলের জন্য তৈরি করতে ঘুম ভাঙালাম। চোখটা আধখানা খুলেই পাখির মতো কণ্ঠে কনিষ্ঠপুত্র বলে উঠল, ‘মা হ্যাপি মাদার্স ডে। প্লিজ তুমি টেবিলের উপর থেকে কোনো কাগজ ধরবা না। তোমার জন্য একটা সারপ্রাইজ রাখা আছে ওখানে’ আর বড়পুত্র ইতোমধ্যে তার তৈরি কাগজখানা আমার হাতে ধরিয়ে দিলো।

আমি কাগজখানা চোখের সামনে ধরলাম।

ডিয়ার মাদার

ওয়ান ডে, আই অয়াজ কুইট স্মল বয়

লিভিং উইথ লাভ, হারমনি অ্যান্ড জয়।

ফ্রম দ্য ডে আই অয়াজ স্মল,

টিল নাউ আই অ্যাম ভেরি টল!

ইয়োর লাভ হ্যাজ নেভার ফলেন শর্ট,

ইউ হ্যাভ বিন মাই অনলি সাপোর্ট।

আই ওয়ান্ট টু হোল্ড ইউ টাইট অ্যান্ড হাগ ইউ,

আই জাস্ট ওয়ান্ট টু সে থ্যাংক ইউ।

সব কেমন ঘোলা ঘোলা লাগে আমার কাছে। আমি বুঝি খুব বেশিই ক্লান্ত ছিলাম, না হলে দুচোখ বেয়ে যে জলধারা নামছে তা থামার কোনো নামই নেই কেন!

কনিষ্ঠপুত্র মুখখানা অপরাধী অপরাধী করে বলল, ‘মা তুমি কি আমার লেখাটা লুকিয়ে লুকিয়ে পড়ে ফেলেছ? তাই কানতেছ?’ এই বলে তার কাগজখানা আমার সামনে মেলে ধরল।

‘মা, ইউ হ্যাভ বিন দ্য সেকেন্ড বেস্ট পারসন আই মেট। মা, নো মেটার হোয়াট এভার ইউ ডু ইজ গুড ফর আস।

মা আমি তোমাকে সেকেন্ড বেস্ট বলেছি দেখে তুমি কেঁদেছ? আমি তো বাবাকে বেস্ট বানিয়েছি, তাই তুমি সেকেন্ড বেস্ট।’

এবার আমি হেসে ফেললাম। কী দৃঢ়তার সঙ্গে বাচ্চাটা কথাগুলো বলল! আমাকে খুশি করার জন্য কোনো মিথ্যা আশ্বাস নয়, তার দেড় বছরের ছোট জীবনে দেখা আর অন্যদের মুখে গল্প শোনা তার বেস্ট পারসন ‘বাবা’কে নিয়ে সে কতটা আত্মবিশ্বাসী!

দুই পাশে এমন দুটি সন্তান নিয়ে সামনের পথগুলো চলতে কিসের ভয় আমার! আমার যে একপাশে পাহাড়ের দৃঢ়তা আর অন্যপাশে সমুদ্রের বিশালতা।

আমরা তিনজনে মিলে শূন্য করে চলে যাবো জীবনের প্রচুর ভাড়ার।’

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here