আ.লীগ নেত্রীর বিরিয়ানি খেয়ে অসুস্থ ৫ শতাধিক

:: সংবাদদাতা, কালীগঞ্জ ::

আওয়ামী লীগ নেত্রী পারভীন তালুকদার মায়ার দেওয়া খাবার খেয়ে ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর ও মহেশপুরে কমপক্ষে ৫ শতাধিক নেতাকর্মী অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। পারভীন তালুকদার মায়া সাবেক সংসদ সদস্য ও ঝিনাইদহ ৩ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

মঙ্গলবার (১৫ মে) মহেশপুর ও বুধবার (১৬ মে) কোটচাঁদপুর উপজেলায় অনুষ্ঠিত কর্মী সম্মেলন, আনন্দ র‌্যালি ও সমাবেশে নেতাকর্মীদের মধ্যে প্যাকেট বিরিয়ানি বিতরণ করা হয়। তাদেরকে গত দু’দিনে জেলার কোটচাঁদপুর, মহেশপুর, কালীগঞ্জ ও চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাদের ভর্তি করা হয়।

এরমধ্যে শুধু কোটচাঁদপুর হাসপাতালে বৃহস্পতিবার (১৭ মে) সকাল ১১টা পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে ২২৭ জন রোগী। তবে পারভীন তালুকদার মায়ার দাবি, একই খাবার খেয়ে তিনি নিজে ও তার স্বামী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার জনপ্রিয়তা দেখে কেউ ষড়যন্ত্র করে খাবারের সাথে পয়জন দিতে পারে বলে যোগ করেন এই আ.লীগ নেত্রী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে মহেশপুর হাইস্কুল মাঠে কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উপস্থিত নেতাকর্মীদের মধ্যে বিতরণ করা খাবার খেয়ে পেট ব্যথা, মাথা ঘোরা, বমি উঠা ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। এ ঘটনার পর স্থানীয় হাসপাতালে প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী ভর্তি হয়।

এর একদিন পর বুধবার বিকালে কোটচাঁদপুর মেইন বাসস্ট্যান্ডে আবারো কর্মী সম্মেলন করে পারভিন তালুকদার মায়া। সেখানে নেতাকর্মীদের মধ্যে বিতরণ করা হয় প্যাকেট বিরিয়ানি। যা খেয়ে গণহারে পেট ব্যথা, মাথা ঘোরা ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। অসুস্থদের মধ্যে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য রয়েছে। যাদেরকে অত্যন্ত গোপনে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

কোটচাদপুর হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বুধবার দুপুরে পারভীন তালুকদার মায়া কর্মী সমাবেশে উপজেলার ৫ ইউনিয়নের প্রায় এক হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। সকলকে প্যাকেট বিরিয়ানি দেওয়া হয়। বিরিয়ানি খাওয়ার পর পরই পেটে ব্যথা, বমি ও পায়খানা শুরু হয়। অসুস্থদের মধ্যে সবাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্য।

কোটচাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ফারহানা শারমিন জানান, বুধবার রাত ৮টার পর থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ২২৭ জন রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে এত রোগী পা রাখার জায়গা নেই।

তিনি বলেন, রোগীদের সাথে কথা বলে মনে হচ্ছে ফুড পয়জনিং এর কারণে এরকম হয়েছে। ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য নবী নেওয়া জানান, বিষয়টি জানার পর ঢাকা থেকে রওনা হয়েছি। তার নেতাকর্মীরা অসুস্থ রোগীদের খোঁজখবর নিচ্ছেন। পারভীন তালুকদারের কর্মী সমাবেশে বিরিয়ানি খেয়ে কয়েকশ নারী-পুরুষ-শিশু অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে বলে জানান এই সাংসদ। তবে পারভীন তালুকদার মায়ার দাবি, একই খাবার খেয়ে তিনি নিজে ও তার স্বামীও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি অভিযোগ করেন, তার জনপ্রিয়তা দেখে কেউ ষড়যন্ত্র করে খাবারের সাথে পয়জন দিতে পারে।

তিনি আরো বলেন, মহেশপুরে যারা অসুস্থ হয়েছিলেন তাতে মনে করেছিলাম ঘি দিয়ে বিরিয়ানি রান্নার কারণে এমন হয়েছে। কিন্তু কোটচাদপুরে যখন একই অবস্থা তখন বুঝতে পেরেছি এটা একটি চক্রান্ত।

ভোরের পাতা/ই

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here