ফুটবল মহাযজ্ঞের বর্ণিল উদ্বোধন

:: ক্রীড়া ডেস্ক ::

কাউন্ট ডাউন শেষ। শেষ হলো চার বছরের প্রতীক্ষার। মস্কোয় শুরু হলো ফুটবলের মহাযজ্ঞ। শুরুটা বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায়। ওই সময় উদ্বোধনী ম্যাচে আয়োজক দেশ রাশিয়া মুখোমুখি হয় সৌদি আরবের। তবে শুরুরও তো একটা শুরু থাকে। প্রদীপ জ্বলার আগে থাকে সলতে পাকানোর পর্ব। উদ্বোধনী ম্যাচের আগে সেভাবেই হলো বর্ণিল উদ্বোধন। ম্যাচ শুরুর আধ ঘণ্টা আগে।

অন্যান্য বার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ম্যাচের এক ঘণ্টা আগে হয়। মস্কোয় তা হলো না। জমকালো অনুষ্ঠানে ছিলেন ইংল্যান্ডের রক মিউজিকের তারকা রিব উইলিয়ামস। ছিলেন রাশিয়ার সোপ্রানো আইডা গারিফুলিনা, স্পেনের কিংবদন্তি প্লাসিডো ডোমিনগো, পেরুর জুয়ান দিয়েগো ফ্লোরেজ। ৮০ হাজার দর্শকের সামনে দেখা দেন দুবারের বিশ্বজয়ী ব্রাজিলের রোনালদোও।

চমক ছিল বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও। এবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান একটু অন্য রকম হতে পারে বলে আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিল ফিফা। বেশি জোর দেওয়া হলো সঙ্গীতানুষ্ঠানে। অন্যতম আকর্ষণ পপ তারকা রবি উইলিয়ামস। ছিলেন একাধিক সঙ্গীতশিল্পী।

ছোট্ট একটা বলকে নিয়েই মেতে উঠছে পড়ুয়া থেকে প্রবীণ। মুছে যাচ্ছে সমাজের হাজারো তুচ্ছ ফারাক, ঘুচে যাচ্ছে নানা বৈষম্য। আগামী এক মাস একটা খেলা ভুলিয়ে রাখবে সবাইকে। ওই বলটাই হয়ে উঠছে স্বপ্ন দেখার সঙ্গী। মুহূর্তের কোনও ড্রিবল, চকিত রক্ষণচেরা থ্রু, স্কিলের ঝলকানি মন-ক্যানভাসে হয়ে যাবে বন্দি।

মারাডোনার শতাব্দী সেরা গোলের মতোই মেসি, নেইমার, রোনালদোদের দিকে নজর থাকবে, তেমনই কোনও মুহূর্ত তারা তৈরি করতে পারেন কি না দেখতে। থাকবে প্রার্থনাও। সবুজ ঘাসে হলদে ব্রাজিলের সাম্বার জন্য। নীল-সাদা জার্সিতে মেসির জন্য। রোনালদোর পর্তুগালের জন্য।

গত বারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি, তিকিতাকা-ইনিয়েস্তার স্পেন, পোগবার ফ্রান্স, সুয়ারেজের উরুগুয়ে- লড়াই জমজমাট। কেউ হাসবেন, কেউ কাঁদবেন, কেউ ফুটবলকে বিদায় জানাবেন চিরতরে। জীবনেরই এক টুকরো জলছবি হয়ে উঠবে কাপ-যুদ্ধ। হাসি-কান্না চলবে হাত ধরাধরি করে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here