দেশকে বাঁচাতে হলে আপাতত ক্রসফায়ারের কোন বিকল্প নেই

:: জয়নাল হাজারী ::

মাদকের করালগ্রাসে সমগ্র জাতি আক্রান্ত। বাংলাদেশের এমন কোন গ্রাম নেই যেখানে মাদকের থাবা বিস্তারিত হয়নি। সবখানেই যেসব ভয়াবহ ঘটনা ঘটছে সেখানেই তার পেছনে মাদকের ভূমিকা প্রধান। সুতরাং এই সর্বনাশা করালগ্রাস থেকে দেশকে বাঁচাতে হলে আপাতত ক্রসফায়ারের কোন বিকল্প নেই। কলম্বিয়া যেমন মাদকের স্বর্গরাজ্য সেখানে আইন-শৃঙ্খলার বালাই নেই সরকারের নিয়ন্ত্রণেও কিছু নেই।

মাদক ব্যবসায়ীদের নিজস্ব সেনাবাহিনী আছে। ওখানে খুন-খারাবির কোন বিচার হয় না। আমাদের দেশটাকে সে পর্যায়ে নিয়ে যেতে দেয়া যায় না। মাদকের জন্য গ্রেফতার করা মামলা দেয়া, জেলে পাঠানো কোন ঘটনাই নয়। মাদক ব্যবসায়ীদের সব সেট করা আছে। ওরা ধরা পড়ে জেলে যায় বেরিয়ে আসে আবার ব্যবসায় জড়িত হয়। ফলে মামলা ওদের কাছে ডাল-ভাত।

সুতরাং মামলা ও জেল যাদের কাছে ডাল-ভাত তাদেরকে দমনের বিকল্প কি? নিশ্চয়ই ক্রসফায়ার। ইতিমধ্যে ক্রসফায়ারের কিছু সুফল পাওয়া গেছে। দেখা গেছে মাদক ব্যবসায়ীরা ব্যাপক হারে পালিয়ে গেছে। আপাতত ব্যবসাও কমে গেছে। মাদকসেবীরাও ভয়ে মাদক সেবন কমিয়ে দিয়েছে। মাদকের বিস্তার কমলে খুন-খারাবি, চুরি-ডাকাতি সবই কমবে। খুন-খারাবি, চুরি-ডাকাতি কমুক এটা কে না চায়।

সুতরাং খুন-খারাবি কমুক এটা যারা চায় এই মূহুর্তে তাদেরকে মাদক নির্মূলে ক্রসফায়ারকে সমর্থন দিতেই হবে। শুধু সমর্থ নয় সকল শ্রেণীর মানুষকে ক্রসফায়ারকে সহযোগীতা করতে হবে। দেশ বাচাতে হলে মাদক নির্মূলে এগিয়ে আসার এটাই সময়। সঠিক সময়ে শেখ হাসিনার মাথায় সঠিক বিষয়টি এসেছে তাই তার সিদ্ধান্তটি শতভাগ সঠিক। মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চলছে সুতরাং যুদ্ধ শেষ হবার আগে কারো কথা শোনার সুযোগ নাই। এই যুদ্ধ চলছে চলুক সমাজ বাচুক। শেখ হাসিনার ভয় নাই জনগণ আছে তাই।

লেখক: প্রতিষ্ঠাতা, প্রকাশক এবং সম্পাদক হাজারিকা প্রতিদিন

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here