ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে আসছেন নারী

::উৎপল দাস::

অপেক্ষার অবসান হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের। আগামী দু-একদিনের মধ্যেই সংগঠনটির নতুন কমিটির ঘোষণা হবে। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের নতুন কমিটিও ঘোষণা করা হবে বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক নেতা জানিয়েছেন। ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে পদ পাওয়ার জন্য নানামুখী তদবিরও শেষ হয়েছে।

গত মে মাসের ১১ ও ১২ তারিখ ছাত্রলীগের ২৯ তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

ছাত্রলীগকে এগিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি সংগঠনের কঠিন সময়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার মানসিকতা ও যোগ্যতা সম্পন্ন হবে বলেই আশা করছেন ছাত্রলীগ সংশ্লিষ্টরা।

২০১৫ সালের ২৬ ও ২৭ জুলাই ছাত্রলীগের ২৮তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে সাইফুর রহমানকে সভাপতি ও এস এম জাকির হোসাইনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বের হাতে উঠছে গৌরব-ঐতিহ্যের ধারক এ ছাত্র সংগঠনটির।

এদিকে নতুন নেতৃত্ব বাছাইয়ের ক্ষেত্রে নারীরা গুরুত্বপূর্ণ পদে উঠে আসবেন বলেও আভাস পাওয়া গেছে। ভোরের পাতার অনুসন্ধান এবং ছাত্রলীগ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ ৫ নেতৃত্বের মধ্যে ২ টি নারী থাকতে পারে। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটিতেও আসতে পারে এমন চমক।

সূত্র আরো জানিয়েছে, ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের ৬ নেতা ইতিমধ্যে ১০ জন নারী নেত্রীর তালিকা জমা দিয়েছেন। তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হয়েছে। আলোচনায় উঠে আসা নারী ছাত্রলীগ নেত্রী মধ্যে রয়েছেন বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি নীশিতা ইকবাল নদী, যিনি বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি ও শামসুন্নাহার হলের সাবেক সভাপতি ছিলেন। অন্যান্যদের মধ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের মেয়ে অর্না জামান। কেন্দ্রীয় কমিটির আরেক সহ-সভাপতি চৈতালী হালদার চৈতী, তার গ্রামের বাড়ি খুলনা অঞ্চলে। আলোচিত সুফিয়া কামাল হল শাখার সাবেক সভাপতি ও বর্তমান কমিটির সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক খালেদা হোসেন মুন। রোকেয়া হলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান কমিটির উপ আন্তর্জাতিক সম্পাদক ইশাত কাসফিয়া ইরা। তিনি কিশোরগঞ্জ অঞ্চল থেকে উঠে এসেছেন। উপ অর্থ সম্পাদক তিলোত্তমা শিকদারও আলোচনায় রয়েছেন। এছাড়া আলোচনায় আছেন কেন্দ্রীয় কমিটির উপ পরিবেশ সম্পাদক শেখ মারুফা নাবিলা, সহ-সম্পাদক সাবরিনা আক্তার। সাবরিনা রোকেয়া হলের সাবেক সভাপতি ছিলেন। এছাড়া বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা হলের সভাপতি বেনজীর হোসাইন নিশি, বিএম লিপি আক্তার যিনি রোকেয়া হল শাখার বর্তমান সভাপতিও আলোচনায় রয়েছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here