কর্নাটকের ২ বিধায়ককে নিয়ে চিন্তায় বিজেপি

:: সীমানা পেরিয়ে ডেস্ক :: ‌

কর্নাটকে সরকার গড়লেও চিন্তা সরছে না বিজেপির মাথা থেকে। বিএস ইয়েদুরাপ্পা মুখ্যমন্ত্রীর পদে শপথ নেওয়ার পরও তাঁকে সংখ্যা গরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে হবে। আর এখানেই চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন বিজেপির ২ বিধায়ক। আর শঙ্কর এবং এইচ নাগেশ এই দুই বিধায়ক এখন এই পরিস্থিতিতে আদৌও বিজেপির পাশে এসে দাঁড়াবেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে রাজনৈতিক মহলে।

সূত্রের খবর, কর্নাটক প্রজ্ঞাবন্ত জনতা দলের একমাত্র বিজয়ী বিধায়ক আর শঙ্কর, যিনি রানেবেন্নুর থেকে জয় লাভ করেন, তাঁকে পরে বিজেপি সমর্থন করেছিল বলে জানা যায়। কিন্তু তিনি জয়ের পর বিজেপি থেকে সরে এসে কংগ্রেসকে সমর্থন করেন। জেতার পর আর শঙ্কর মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পার বাসভবন ডলার কলোনিতেও বিজেপির অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে যান। সেখানেই তিনি ঘোষণা করেন যে তিনি বিজেপির সঙ্গে রয়েছেন।

কিন্তু ওইদিন সন্ধ্যাতেই তিনি তাঁর ভোল বদলে নিজের দলের দপ্তরে গিয়ে জানান যে তিনি কংগ্রেস–জেডিএসের পাশে আছেন। শঙ্কর বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে জানান যে, তাঁরা বিধায়কদের বেধে রাখতে সক্ষম নন। বিজেপির এখন লক্ষ্য যাঁরা দল ছেড়ে কংগ্রেসে গিয়েছেন এবং নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন তাঁদের ফের দলে ফিরিয়ে আনা।

কংগ্রেসরই এক বিধায়ক জানান যে, বিজেপি নেতারা তাঁকে ফোন করে কংগ্রেস ছেড়ে তাঁদের দলে আসার প্রস্তাব দিয়েছে।

অন্যদিকে বিধায়ক এইচ নাগেশ যিনি বিজেপিকে সমর্থন করবে বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন, তিনিও পরে কংগ্রেসের দিকে সরে যান।

ফলে কর্নাটকে বিজেপি সরকার আসলেও এই ২ বিধায়কই হয়ত কর্নাটকের ভাগ্য ফেরাতে পারেন অথবা তা দুর্ভাগ্যে পরিণত করতে পারেন। এই দুই বিধায়ককে নিয়ে অবশ্য চিন্তায় রয়েছে কংগ্রেসও। কারণ বিজেপির দিকেও এই দুই বিধায়ক তাঁদের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারেন। তাই স্বস্তিতে নেই কংগ্রেসও।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here