আসিফের জামিনের খবরে ফেসবুকে যে স্ট্যাটাস দিলেন শফিক তুহিন!

::বিনোদন ডেস্ক::

তথ্যপ্রযুক্তি আইন ও প্রতারণা মামলায় গ্রেফতার হওয়া জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আসিফ আকবর জামিন পেয়েছেন। ১১ জুন, সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা মহানগর হাকিম কেশব চন্দ্র রায় ১০ হাজার টাকা মুচলেকা বন্ডে পুলিশ প্রতিবেদন জমা দেওয়া পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করেন।

এর আগে সকালে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে এ জামিন আবেদন করেন আসিফের আইনজীবী নুসরাত জাহান। গত ১০ জুন, রবিবার জামিনের আবেদন করা হলেও কিছুক্ষণ পর কোনো কারণ উল্লেখ না করেই আবেদনটি প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন আসিফের আইনজীবী।

এদিকে আসিফের মুক্তির পরপরই ফেসবুকে ‘আলহামদুলিল্লাহ’ লিখে পোস্ট দেন মামলার বাদী সুরকার ও সংগীতশিল্পী শফিক তুহিন। আসিফের জামিনে তার প্রতিক্রিয়া জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোনটি ধরেননি।

শুধু শফিক তুহিন নন আসিফের জামিনের খবরে আরও বেশ কয়েকজন সংগীতশিল্পীকে ‘আলহামদুলিল্লাহ’ লিখে ফেসবুকে পোস্ট দিতে দেখা যায়।

এর আগে শফিক তুহিনের করা তথ্যপ্রযুক্তি আইন ও প্রতারণার একটি মামলায় গত ৫ জুন মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে সিআইডির একটি দল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) সংলগ্ন নিজ স্টুডিও থেকে আসিফকে গ্রেফতার করে। শফিক তুহিনের মামলায় আসিফ ছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরও চার থেকে পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, পয়লা জুন আনুমানিক রাত ৯টার দিকে ‌চ্যানেল টোয়েন্টিফোর-এর সার্চ লাইট নামের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের মাধ্যমে শফিক তুহিন জানতে পারেন, আসিফ অনুমতি ছাড়াই তার সংগীতকর্মসহ অন্যান্য গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীদের ৬১৭টি গানের বাণিজ্যিক ব্যবহার করে লাভবান হয়েছেন।

শফিক তুহিন অভিযোগ করে আরও বলেন, ২ জুন দিবাগত রাতে নিজ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে অনুমোদন ছাড়া গান বিক্রির বিষয়ে একটি পোস্ট দেন তিনি। সেই পোস্টে আসিফ অশালীন মন্তব্য করেন ও তাকে হুমকি দেন। ৩ জুন নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসেও আসিফ অবমাননাকর, অশালীন ও মিথ্যা-বানোয়াট বক্তব্য দেন। এসব বিবেচনায় এই শিল্পীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

আসিফ আকবর ২০০১ সালে প্রকাশিত তার প্রথম গানের অ্যালবাম ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’-এর মাধ্যমে ব্যাপক পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা লাভ করেন। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত পরপর ছয় বছর অ্যালবাম বিক্রির দিক থেকে শীর্ষে ছিলেন আসিফ। তার প্রথম অ্যালবাম ৫৫ লাখ কপি বিক্রি হয়েছিল, যা অডিও ইতিহাসে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here